প্রতিবন্ধী শিশুদের অরক্ষিত অবস্থা বিষয়ক গবেষণার তথ্যবিনিময়ে জাতীয় সেমিনার-বরিশাল

৫ জানুয়ারি, ২০১৭, বরিশাল

সহযোগিতায়: সেভ দ্য চিলড্রেন বাংলাদেশ (আইপিইপি প্রকল্প)

প্রতিবন্ধী শিশুদের অরক্ষিত অবস্থা বিষয়ক গবেষণার তথ্যবিনিময় সেমিনার ৫ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে বরিশাল শহরের বিডিএস মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জনাব মোঃ নূরুল আলম, অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার, বরিশাল বিভাগ। বিশেষ অতিথি হিসেবে সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন আলহায সৈয়দ গোলাম মাহবুব, প্যানেল মেয়র, বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এবং জনাব মোঃ ওয়াহিদুজ্জামান, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা, বরিশাল সিটি কর্পোরেশন। সেমিনারে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে ছিলেন জেলা ও উপজেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের কর্মকর্তাবৃন্দ, ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারের কর্মকর্তাবৃন্দ, হাসপাতালের কর্মকর্তাবৃন্দ, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ও শিশুদের নিয়ে কর্মরত সংস্থার প্রতিনিধিবৃন্দ, জনপ্রতিনিধি, পেশাজীবী সংগঠন, সাংবাদিক, আইনজীবী, প্রতিবন্ধী শিশু, প্রতিবন্ধী শিশুর অভিভাবক, মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের কর্মকর্তাবৃন্দ, প্রতিবন্ধী সেবা ও সাহায্য কেন্দ্রের কর্মকর্তাবৃন্দ, বিশেষ ও মূলধারার বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও ছাত্র, কারখানার মালিক ও মসজিদের ইমাম। প্রধান অতিথি প্রতিবন্ধী শিশুসহ সকল শিশুর সুরক্ষায় সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ের সংস্থাসহ সকল নাগরিককে প্রতিবন্ধী শিশুদের ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থা প্রশমনেএগিয়ে আসার আহ্বান জানান। তিনি বলেন সকল নাগরিককের সচেতনতা ও দায়িত্ববোধ ছাড়া প্রতিবন্ধী শিশুদের নির্যাতন ও অবহেলা থেকে রক্ষা করা যাবে না। বিশেষ অতিথিদ্বয় প্রতিবন্ধী শিশুদের নির্যাতন মোকাবেলায় তাদের কাজের পরিধি সম্প্রসারণের আশ্বাস দেন।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জনাব ইসহাক আলী মিজান, নির্বাহী পরিচালক, ইয়েস বাংলাদেশ, বরিশাল ও জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরামের বরিশাল বিভাগের বিভাগীয় প্রতিনিধি। তিনি সবাইকে স্বাগত জানিয়ে ইয়েস বাংলাদেশ ও ফোরাম সম্পর্কে সবাইকে অবহিত করেন। সেমিনারে

জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরামের সমন্বয়কারী (প্রোগ্রামস) জনাব মোঃ মোশাররফ হোসেন গবেষণার তথ্য উপস্থাপন করেন। উপস্থাপনায় বস্তিবাসী শিশু, পথশিশু ও বাড়িতে বসবাসকারী শিশুদের নির্যাতনের চিত্র চলে আসে। এতে প্রতিবন্ধী শিশুদের যত্নদানকারী ও অভিভাবকদের যত্ন ও লালনপালনে অবহেলার চিত্রও পাওয়া যায়। অংশগ্রহণকারীগণ প্রতিবন্ধী শিশুদের অরক্ষিত/ঝুকিপূর্ণ অবস্থা নিরসনের জন্য বাড়িতে, বিদ্যালয়ে, কর্মস্থলে, চলাফেরার রাস্তাঘাটে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করার কথা বলেন। যত্নদানকারীদের আরও দায়িত্বশীল হতে হবে, তাদের অবহেলা ও দায়িত্বহীনতার কারণে প্রতিবন্ধী শিশুরা ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থার শিকার হয় অধিকাংশ ক্ষেত্রে। অনেক শিশু কারখানায়, হোটেল, রেস্তোরায় কাজ করে যা তাদের জন্য উপযোগী নয়। তাদের যেখানে স্কুলে যাওয়ার কথা সেখানে তারা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করে। অনেক শিশু বাড়িতে কাজের মেয়ে হিসেবে কাজ করে যেখানে তাদেরকে দিয়ে অতিরিক্ত কাজ করানো হয় এবং অনেকক্ষেত্রে তাদের কাজগুলো ঝুঁকিপূর্ণ। অংশগ্রহণকারীগণ এ অবস্থার উন্নয়নের জন্য সামাজিক সচেতনতার উপর গুরুত্বারোপ করেন। এ সচেতনতা সরকারি ও বেসরকারি এবং ব্যক্তি পর্যায় তথা সকল দিক থেকে হতে হবে এবং এ সচেতনতার মাধ্যমেই প্রতিবন্ধী শিশুসহ সকল শিশুর সুরক্ষা নিশ্চিত হবে।

সেমিনারটি যৌথভাবে আয়োজন করে জাতীয় প্রতিবন্ধী ফোরাম ও বরিশালের স্থানীয় সংস্থা ফোরামের সদস্য সংগঠন ইয়েস বাংলাদেশ।